ঢাকাবৃহস্পতিবার, ২৬শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, বিকাল ৪:২৮
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নিদারুণ ব্যর্থতায় বাংলাদেশ বুঝল, সব সাফল্যেই তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে নেই

লিংকন
অক্টোবর ১৮, ২০২১ ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ
পঠিত: 180 বার
Link Copied!

নিদারুণ ব্যর্থতায় বাংলাদেশ বুঝল, সব সাফল্যেই তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে নেই।

বিশ্বকাপের আগে মিরপুরের ধীরগতির, স্পিনবিষ ছড়ানো উইকেটে অস্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জেতা বাংলাদেশ বারবার জয়ের অভ্যাসে আত্মবিশ্বাস খুঁজে নিয়েছিল। মিরপুরের উইকেটের সঙ্গে ওমান-আমিরাতের উইকেটের মিল নেই, মিরপুরের উইকেটে সিরিজগুলোয় জয় তাই আসলে কতটা ভালো প্রস্তুতি—এমন প্রশ্নে মেশানো উদ্বেগকে বাংলাদেশ বারবার ঢেকে দিতে চেয়েছে জয়ের অভ্যাসের মোড়কে।

কিন্তু স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে গতকাল ৬ রানের হারটা আবরণ খুলে দেখিয়ে দিল প্রস্তুতির দৈন্য।

বাংলাদেশের দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়াও এখন শঙ্কায় পড়ে গেল। বাংলাদেশের জন্য এখন ওমান ও পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে পরের দুই ম্যাচে জেতা ‘অবশ্যকর্তব্য’। এর পাশাপাশি রানরেটের হিসাবের ঝামেলায় যেতে না চাইলে প্রার্থনায় থাকতে হবে যেন স্কটল্যান্ডের কাছে ওমান হেরে যায়।

তা না হলে? রানরেটের মারপ্যাঁচ শুরু হয়ে যাবে। যেখানে কাল পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে বিশাল ব্যবধানে জেতা ওমান অনেক এগিয়ে। গ্রুপের শীর্ষে থাকা ওমানের নেট রানরেট (+) ৩.৩৩৫, বাংলাদেশের (-) ০.৩০০। দুইয়ে থাকা স্কটল্যান্ডের স্বাভাবিকভাবেই তাই (+) ০.৩০০। রানরেটের এই হিসাবা মেলানো হয়তো একেবারে অসম্ভব হবে না। তবে এর আগে মিরপুরের অভ্যাস থেকে বেরোতে হবে বাংলাদেশকে।

১৪১ রানের লক্ষ্য মিরপুরের মাটিতে অনেক বড় কিছু—মিরপুরে রান তাড়া করতে গিয়ে সর্বশেষ ১৪ ম্যাচে মাত্র একবারই এর চেয়ে বেশি রান করেছে বাংলাদেশ দল। কিন্তু গত দুই মাসে ওমানের মাটিতে সহযোগী দেশগুলোর ‘হাই-স্কোরিং’ ম্যাচগুলো বুঝিয়ে গেছে, ওমানের আল আমেরাতে ১৪১ অত বড় কিছু নয়। তুলনামূলক দুর্বল স্কটিশ বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে বাংলাদেশের এ ম্যাচ সহজেই জেতার কথা ছিল। কিন্তু মিরপুরের অভ্যাস বিশ্বকাপে গিয়েও বদলাতে পারল না বাংলাদেশ।

দুই ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকার ২১ বলের মধ্যে ফিরলেন দলকে ১৮ রানে রেখে। বিশ্বকাপের আগে এ বছরে বাংলাদেশের ১৬ টি-টোয়েন্টির সব কটিতে খেলা মোহাম্মদ নাইমের বদলে উদ্বোধনী জুটিতে লিটনের সঙ্গী করে নামানো হলো দুই প্রস্তুতি ম্যাচে মধ্য তিরিশের ইনিংস খেলা সৌম্যকে। বাংলাদেশ দলের নির্বাচকদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলে দেওয়া সিদ্ধান্তটাকে আরও প্রশ্নবিদ্ধ করে দিয়ে সৌম্য আরেকবার ব্যর্থ।

তিনে নামা সাকিবের ২০ রান এল ৭১.৪২ স্ট্রাইক রেটে। মাঝে তৃতীয় থেকে নবম ওভারের মধ্যে টানা ৩৫ বলে বাউন্ডারি পায়নি বাংলাদেশ। নবম ওভারে টানা দুই ছক্কায় সেই বাউন্ডারি–খরা ঘোচানো মুশফিক ৩৬ বলে ৩৮ করেছেন বটে; কিন্তু চাপে পড়লেই বারবার স্লগ সুইপ, প্যাডল স্কুপ করার চেষ্টায় ক্যারিয়ারে অনেকবার দৃষ্টিকটুভাবে আউট হওয়া মুশফিক কালও আরেকবার দলের বিপদ বাড়িয়ে দিয়ে ফিরলেন স্কুপ করার চেষ্টায় বাজেভাবে বোল্ড হয়ে।
তখনো বাংলাদেশের জয়ের সম্ভাবনাই বেশি দেখাচ্ছিল। দেখাবেই-না কেন! অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ, আফিফ, নুরুল, সাইফউদ্দিন…বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডার কাগজে-কলমে তো বেশ লম্বা। কিন্তু এই লম্বা ব্যাটিং অর্ডার তো তখনই কাজে আসবে, যখন ব্যাটসম্যানদের চাপের মুহূর্তে চার-ছক্কা বের করা, এক-দুই রানে প্রতিপক্ষকে উল্টো চাপে ফেলার প্রস্তুতি আর অভ্যাস থাকবে!

তা ছিল না বলেই মাহমুদউল্লাহ-আফিফদের ১০০-র একটু বেশি স্ট্রাইক রেটের ইনিংসগুলো ২০ রানের আশপাশেই থামল। ছিল না বলেই ছক্কা মারতে গিয়ে বাউন্ডারিতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ, আফিফ, নুরুল তিনজনই। ছিল না বলেই শেষ পর্যন্ত ১৩৪ রানের বেশি আর যাওয়া হলো না বাংলাদেশের।

মজার ব্যাপার কী, তা জানেন, মিরপুরে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ম্যাচেও ঠিক ১৩৪ রানই করেছিল বাংলাদেশ। প্রস্তুতি বটে!

এর আগে স্কটল্যান্ডের ইনিংসে অবশ্য আল আমেরাতকে অনেকক্ষণ পর্যন্ত মিরপুর বলে মনে করিয়েছেন সাকিব-মেহেদীরা। অনেকক্ষণ বলতে ১২তম ওভারের আগ পর্যন্ত।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।