আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের দুরবস্থা নিয়ে পাল্টাপাল্টি সমালোচনার ঝড় বইছে

জয়িতা দাস
অক্টোবর ২৯, ২০২১ ১০:২৯ পূর্বাহ্ণ
পঠিত: 150 বার
Link Copied!

আবদুর রাজ্জাক পরামর্শটা দিতে বেশি শব্দ নিলেন না। ঢাকা থেকে হোয়াটসঅ্যাপে তাঁর এক বাক্যের কথা, ‘এ রকম পরিস্থিতি সামলানোর সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে চুপ থাকা।’

রাজ্জাক কোন পরিস্থিতির কথা বললেন এবং চুপ থাকার পরামর্শটা কাদের দিলেন, সেটি বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় কারও। পরিস্থিতি বলতে এই যে টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের দুরবস্থা নিয়ে পাল্টাপাল্টি সমালোচনার ঝড় বইছে, সেটা। আর তিনি চুপ থাকতে বলেছেন কিছুদিন আগেও যাঁদের সঙ্গে একই ড্রেসিংরুমে থেকেছেন, সেই ক্রিকেটারদের। তাঁর চোখে ক্রিকেটারদের সমালোচনাগুলোকে ইতিবাচকভাবেই নেওয়া উচিত।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দল একের পর এক হতাশাই উপহার দিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের মতো সুপার টুয়েলভের দুই ম্যাচেই হেরে বাংলাদেশের চেয়েও কম নেট রানরেট অর্জন করা ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শারজায় খেলতে নামার আগেও আজ ভালো কিছু আশা করাটা তাই দুঃসাহস দেখানোর মতো মনে হচ্ছে।

এ রকম সময়ে আর সব বাদ দিয়ে খারাপ খেলার কারণ খুঁজে বের করাটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কোচ–খেলোয়াড়েরা মিলে সেটা হয়তো করছেনও। কিন্তু একই সঙ্গে তাঁরা যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, সংবাদমাধ্যম, সাবেক ক্রিকেটার এবং ক্রিকেট বোর্ডের সমালোচনার জবাবে পাল্টা ঢিল ছুড়তে পথে নেমে গেলেন, সেটাই বিপদ।

সমালোচনার জবাব খেলোয়াড়েরা সব সময় দিয়ে এসেছেন ব্যাট–বলের পারফরম্যান্স দিয়ে। এবার সেটি না করে তাঁরা নিজেরাই সমালোচনার মহাসড়কে নেমে গেছেন ‘পিকেটিং’ করতে! এখন তো এই কাজে কারও কারও পরিবার–পরিজনও সম্পৃক্ত হয়ে গেছে। সব জায়গা থেকে এমন অসহিষ্ণুতার আগুন ছড়িয়ে পড়লে কে কাকে থামাবে, কে কাকে বোঝাবে?

বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই নতুন ‘সংস্কৃতি’ ভালো লাগছে না জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা প্রধান আকরাম খানের। দলের সঙ্গে জৈব সুরক্ষাবলয়ে না থাকলেও বিশ্বকাপ উপলক্ষে এখন তিনি দুবাইয়ে। বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা প্রধান হিসেবে জাতীয় দলের ভালো–মন্দের সঙ্গে আকরামের সম্পৃক্ততা সরাসরি। কাল সেই আকরাম খানের কণ্ঠেই হতাশা, ‘বিশ্বকাপে অনেক দলই খেলছে। তাদের সবার মনোযোগ কিন্তু মাঠ আর খেলার মধ্যে। একমাত্র আমাদের দলই দেখলাম মাঠের বাইরের কথাবার্তায় মনোযোগ দিচ্ছে। দলের ওপর এটার নেতিবাচক প্রভাবও পড়ছে।’

সমালোচনার জবাব খেলোয়াড়েরা সব সময় দিয়ে এসেছেন ব্যাট–বলের পারফরম্যান্স দিয়ে। এবার সেটি না করে তাঁরা নিজেরাই সমালোচনার মহাসড়কে নেমে গেছেন ‘পিকেটিং’ করতে! এখন তো এই কাজে কারও কারও পরিবার–পরিজনও সম্পৃক্ত হয়ে গেছে। সব জায়গা থেকে এমন অসহিষ্ণুতার আগুন ছড়িয়ে পড়লে কে কাকে থামাবে, কে কাকে বোঝাবে?

বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই নতুন ‘সংস্কৃতি’ ভালো লাগছে না জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা প্রধান আকরাম খানের। দলের সঙ্গে জৈব সুরক্ষাবলয়ে না থাকলেও বিশ্বকাপ উপলক্ষে এখন তিনি দুবাইয়ে। বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা প্রধান হিসেবে জাতীয় দলের ভালো–মন্দের সঙ্গে আকরামের সম্পৃক্ততা সরাসরি। কাল সেই আকরাম খানের কণ্ঠেই হতাশা, ‘বিশ্বকাপে অনেক দলই খেলছে। তাদের সবার মনোযোগ কিন্তু মাঠ আর খেলার মধ্যে। একমাত্র আমাদের দলই দেখলাম মাঠের বাইরের কথাবার্তায় মনোযোগ দিচ্ছে। দলের ওপর এটার নেতিবাচক প্রভাবও পড়ছে।’

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।